দেশে চীনা ভ্যাকসিনের ট্রায়াল

0
37

আগামী তিন সপ্তাহের মধ্যে বাংলাদেশে চীনের একটি প্রতিষ্ঠানের করোনা ভ্যাকসিনের তৃতীয় ধাপের ট্রায়াল শুরু হবে ৷ সাতটি হাসপাতালের স্বাস্থ্যকর্মীদের ওপর এই পরীক্ষা চালানো হবে৷ ট্রায়াল শেষ হতে লাগবে ১৮ মাস৷ চীনের সিনোভেক বায়োটেক কোম্পানির করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিনের দুইটি ধাপের ট্রায়াল এরইমধ্যে সেখানে সফল হয়েছে৷ এবার বাজারজাত করার আগের ধাপে মানবদেহে পরীক্ষার পালা৷ বাংলাদেশে এই ভ্যাকসিনের মানবদেহে কার্যকারিতা পরীক্ষা করবে আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র, বাংলাদেশ (আইসিডিডিআর,বি)৷ এজন্য নৈতিক (এথিক্যাল) অনুমোদন দিয়েছে বাংলাদেশ মেডিকেল রিসার্চ কাউন্সিল (বিএমআরসি)৷

এনিয়ে আইসিডিডিআর,বি এখন পর্যন্ত সংবাদমাধ্যমে কথা বলেনি৷ জানা গেছে, চুক্তির শর্তের কারণে ট্রায়াল শুরুর আগে তারা কথা বলতে পারবে না৷ ট্রায়াল শুরু হলে তারা সংবাদ সম্মেলন করে বিষয়টা জানাবে৷ তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন কর্মকর্তা জানান, যে হাসপাতালগুলোর স্বাস্থ্যকর্মীদের ওপর এই ভ্যাকসিন পরীক্ষা করা হবে তাদের সাথে চুক্তি হচ্ছে৷ আরো কিছু কাজ এখন বাকি আছে৷ তিনি জানান, ‘‘দুই পক্ষের আগ্রহেই ট্রায়ালের এই চুক্তি হয়েছে৷ আইসিডিডিআর,বি এর আগেও ওই চীনা প্রতিষ্ঠানের সাথে বিভিন্ন যৌথ গবেষণার কাজ করেছে৷’’

বিএমআরসির পরিচালক মাহমুদ উজ জাহান জানান, ‘‘তৃতীয় ধাপের এই পরীক্ষা সর্বশেষ ধাপ৷ এটা সম্পন্ন হলে জানা যাবে যে করোনা প্রতিরোধে এই ভ্যাকসিন মানবদেহে কার্যকর হবে কিনা৷ আমাদের কাছে আইসিডিডিআর,বি প্রটোকল জমা দিয়েছিল৷ ন্যাশনাল এথিকস কমিটি এথিক্যালি অনুমোদন দিয়েছে৷’’

কিন্তু এখনো আরো কিছু অনুমোদন লাগবে৷ তার মধ্যে রয়েছে ওষুধ প্রশাসন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর, আর যে হাসপাতালগুলোতে কাজ হবে তাদের অনুমোদন৷ এছাড়া কিছু রিএজেন্ট আনারও অনুমোদন দরকার হবে৷

 ট্রায়াল : যেসব হাসাপতালের স্বাস্থ্যকর্মীদের ওপর ট্রায়াল হবে সেগুলো হলো: ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ইউনিট-২, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল বার্ন ইউনিট-১, মুগদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল, হলি ফ্যামিলি রেড ক্রিসেন্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, কুয়েত-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতাল এবং ঢাকা মহানগর হাসপাতাল৷ হাসপাতালগুলোর চার হাজার ২০০ কর্মী এই পরীক্ষার আওতায় থাকবেন৷ সবার শরীরেরই ভ্যাকসিন প্রয়োগ হবে৷ তবে করোনার ভ্যাকসিন ‘করোনাভেক’ প্রয়োগ হবে তাদের অর্ধেক দুই হাজার ১০০ জনের ওপর৷ বাকি দুই হাজার ১০০ কর্মীকে নিরপেক্ষ কোনো ভ্যাকসিন দেয়া হবে৷ কিন্তু তাদের কেউই জানবেন না কার শরীরে করোনা ভ্যাকসিন আর কার শরীরে অন্য ভ্যাকসিন৷ নির্দিষ্ট সময় পরে এর কার্যকারিতা বোঝা যাবে৷ করোনা ভ্যাকসিনের প্রভাব এবং যাদের দেয়া হয়নি তাদের অবস্থা তুলনা করা হবে৷

এই ট্রায়ালে মোট ১৮ মাস সময় লাগবে৷ সব প্রক্রিয়া শেষ করে তিন সপ্তাহের মধ্যে ট্রায়ালের কাজ শুরু হতে পারে বলে জানান মাহমুদ উজ জাহান৷ তবে সেটা নির্ভর করছে আইসিডিডিআর,বি-এর ওপর৷ ট্রায়ালের সময় চীনা বিশেষজ্ঞরাও বাংলাদেশে থাকবেন৷ যাদের ওপর ভ্যাকসিন প্রয়োগ হবে তাদের সেফটি নিশ্চিত করা হবে, তাদের ফলোআপে রাখা হবে৷ তাদের ওপর বিরূপ প্রতিক্রিয়া হলে কি করা হবে তাও আগে থেকেই ঠিক করা আছে৷

বাংলাদেশে কেন?: আইসিডিডিআর,বি-এর একজন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, তৃতীয় পর্যায়ের এই ট্রায়ালে অনেক লোকের প্রয়োজন হয়৷ তাই তারা জনবহুল দেশকে বেছে নেয়৷ এখন ব্রাজিলে এরইমধ্যে থার্ড স্টেজ ট্রায়াল চলছে ছয় হাজার ৭০০ জনের ওপর৷ মাহমুদ উজ জাহান বলেন, ‘‘এটা হলো বাজারজাত করার আগের ধাপ৷ এটা সফল হলেই তারা এই ভ্যাকসিন বাজারজাত শুরু করবে৷ আর বাংলাদেশে এই ট্রায়ালের সুযোগ দেয়ায় তারা বাংলাদেশকে কিছু ভ্যাকসিন বিনামূল্যে দেবে৷ কিছু দেবে লো কস্টে৷ আর এখানে ভ্যাকসিন উৎপাদনের প্ল্যান্টও স্থাপন করবে তারা৷ ফলে বাংলাদেশে ভ্যাকসিনটি কম দামে ও দ্রুত পাওয়া যাবে৷’’

আইসিডিডিআর,বি-এর ওই কর্মকর্তা জানান, সিনোভেক বায়োটেক একটি নির্ভরযোগ্য প্রতিষ্ঠান৷ অতীতে তাদের সাথে কাজের অভিজ্ঞতায় তাই প্রতীয়মান হয়েছে৷ আইসিডিডিআর,বি-এর মিডিয়া ম্যানেজার তারিফ হাসান বলেন, ‘‘সংবাদমাধ্যমকে এখনো জানানোর সময় আসেনি৷ আমরা সময়মতো বিস্তারিত জানাব৷’’

DW

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here