সরকারের এক বছর

0
605

টানা তৃতীয় মেয়াদে সরকার পরিচালনার প্রথম বছর পূর্ণ করছে আজ আওয়ামী লীগ। এই এক বছরে নির্বাচনী ইশতেহার বাস্তবায়নের পথে হাঁটাসহ নানা ক্ষেত্রেই সাফল্য পেয়েছে তারা।

বিশেষত, গত এক বছরে মাদক ও দুর্নীতিবিরোধী শুদ্ধি অভিযান চালিয়ে চারবারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জনপ্রিয়তার শীর্ষে উঠেছেন বলে মনে করা হচ্ছে।

সরকারের বর্ষপূর্তিতে আজ মঙ্গলবার জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রাজনৈতিক বিশ্নেষকদের একাংশ বলছেন, ২০১৮ সালের শেষে আকাশছোঁয়া জয় পাওয়ার পর বর্তমান সরকার প্রথম বছরেই উন্নয়ন কার্যক্রম অব্যাহত রাখার পাশাপাশি নির্বাচনী ইশতেহারে প্রতিশ্রুতি পূরণে বেশ কিছু সাফল্য দেখিয়েছে। দুর্নীতির বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীর জিরো টলারেন্স নীতিই সরকারের বড় সাফল্য। মাদকের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান ও শুদ্ধি অভিযানের মধ্য দিয়ে সরকার চেষ্টা করছে জনপ্রিয়তা ধরে রাখতে। পাশাপাশি প্রস্তুতি নিচ্ছে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীর দিন ১৭ মার্চ থেকে ২০২১ সালের ২৬ মার্চ স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর দিন পর্যন্ত মুজিববর্ষ পালনের।

সরকারের প্রথম বছরে ক্যাসিনোকাণ্ডে জড়িত প্রভাবশালীদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিয়ে প্রশংসা কুড়িয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। ক্যাসিনোকাণ্ডে জড়িত থাকায় ছাড় দেওয়া হয়নি ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাট, সহসভাপতি এনামুল হক আরমান, সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়া, ঢাকার তিনজন ওয়ার্ড কাউন্সিলর হাবিবুর রহমান মিজান, তারেকুজ্জামান রাজিব ও ময়নুল হক মনজুসহ কাউকেই। চাঁদা দাবির অভিযোগে পদ হারিয়েছেন ছাত্রলীগ সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী।

ঘুষ, দুর্নীতি, চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি, প্রতারণা, জালিয়াতি এবং টিআর-কাবিখাসহ সামাজিক নিরাপত্তামূলক কর্মসূচি বাস্তবায়নে দুর্নীতি ও সরকারি-বেসরকারি সম্পত্তি লুটপাটের অভিযোগে চট্টগ্রাম-১২ আসনের এমপি সামশুল হক চৌধুরী, কিশোরগঞ্জ-৫ আসনের এমপি আফজাল হোসেন, সুনামগঞ্জ-১ আসনের এমপি ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন, নারায়ণগঞ্জ-২ আসনের এমপি নজরুল ইসলাম বাবু এবং ভোলা-৩ আসনের এমপি নুরুন্নবী চৌধুরী শাওনের বিরুদ্ধে তদন্তে নেমেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

এই সরকারের সময় ঈর্ষণীয় সাফল্য এসেছে কৃষিক্ষেত্রে। খোরপোষের কৃষি বাণিজ্যিক কৃষিতে রূপান্তরিত হয়েছে। বাংলাদেশ এখন বিশ্বে সবজি উৎপাদনে তৃতীয়, মাছ উৎপাদনে চতুর্থ ও খাদ্যশস্য উৎপাদনে দশম অবস্থানে রয়েছে। ফল উৎপাদনও বেড়েছে। জিডিপিতে কৃষি খাতের অবদান এখন ১৩ দশমিক ৬ শতাংশ। ২০১৯-২০ অর্থবছরে কৃষক পর্যায়ে ডিএপি সারের খুচরা মূল্য ২৫ টাকা থেকে কমিয়ে ১৬ টাকা করায় প্রশংসিত হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। কমিউনিটি ক্লিনিক ও ইউনিয়ন স্বাস্থ্যকেন্দ্র থেকে গ্রামের মানুষকে স্বাস্থ্যসেবা দেওয়া হচ্ছে।

এ বছর দক্ষিণ জনপদের মানুষের বহুল প্রত্যাশিত স্বপ্নের পদ্মা সেতুর ১০৫০ মিটার অংশের নির্মাণকাজ আরও দৃশ্যমান হয়েছে। তবে ‘পদ্মা সেতুর জন্য মানুষের মাথা লাগবে’- এমন গুজবে সাময়িক অস্থিরতা পাড়ি দিতে হয়েছে মানুষকে। গুজবের কারণে ৩৫ টাকার লবণ ১০০ টাকায় বিক্রি হলেও গুজব বেশিদূর এগুতে পারেনি।

গুলশানে হলি আর্টিসানে নজিরবিহীন জঙ্গি হামলা মামলার রায়ে ২২ জনকে হত্যার দায়ে নব্য জেএমবির সাত সদস্যের মৃত্যুদণ্ড হওয়ায় স্বস্তিভাব এসেছে সর্বস্তরে। এবারও শিক্ষাবর্ষ শুরুর দিনেই শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিনামূল্যে বই পৌঁছে দিয়ে সরকার সাধুবাদ কুড়িয়েছে। দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী শিশুরাও ব্রেইল পদ্ধতির বই পেয়েছে। সাক্ষরতার হার ৭৩ শতাংশ ছাড়িয়েছে।

অর্থনীতির ইতিবাচক ধারা অব্যাহত থেকেছে বছরজুড়ে। উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা পেয়েছে দেশ। বিশেষ করে গ্রামীণ অর্থনীতি মজবুত ভিতের ওপর দাঁড়িয়েছে। তবে চামড়া সংকট ভুগিয়েছে অর্থনীতিকে। এই বছরও বিদ্যুৎ সুবিধাসহ, বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতাসহ সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর উপকারভোগীর সংখ্যা আরও বেড়েছে। ব্যবসায় এবং শিল্পবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টির মাধ্যমে কর্মসংস্থান তৈরি হয়েছে। রপ্তানি বাণিজ্য প্রসারিত হয়েছে। মাথাপিছু আয় ও বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বেড়েছে। মূল্যস্ম্ফীতি কমেছে। অর্থনৈতিক অগ্রগতির সূচকে বিশ্বের শীর্ষ পাঁচটি দেশের একটি এখন বাংলাদেশ।

রাজধানীতে প্রায় ২০ কিলোমিটার দীর্ঘ মেট্রোরেল প্রকল্পের কাজ এগিয়ে চলছে। রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র, মহাসড়কগুলোকে চার লেনে উন্নীতকরণসহ মেগা প্রকল্পগুলো দৃশ্যমান হচ্ছে। দুই ডজনের বেশি হাইটেক পার্ক এবং আইটি ভিলেজ নির্মাণের কাজ এগিয়ে চলছে। প্রতিটি গ্রামে শহরের সুবিধা পৌঁছে দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এতসব অর্জন, যা বাংলাদেশের ইতিহাসে এর আগে দেশবাসী প্রত্যক্ষ করেনি।