দশ ট্রাক অস্ত্র মামলার রায় প্রত্যাখ্যান করেছে জামায়াতে ইসলামীর

0
889

মকবুল আহমেদদশ ট্রাক অস্ত্র মামলায় জামায়াতে ইসলামীর আমির ও সাবেক মন্ত্রী মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীর মৃত্যুদণ্ডের রায় প্রত্যাখ্যান করেছে দলটি।রায়কে মিথ্যা ও সাজানো দাবি করে এটা নিজামীকে অত্যন্ত সুপরিকল্পিতভাবে হত্যার সরকারি ষড়যন্ত্র বলে মন্তব্য করেন জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত আমির মকবুল আহমাদ।

বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘সরকার রাজনৈতিক প্রতিহিংসা চরিতার্থ করার জন্য মাওলানা নিজামীর বিরুদ্ধে পরিকল্পিতভাবে মিথ্যা ও সাজানো অভিযোগ দায়ের করে।’মকবুল আহমাদের দাবি, ‘সরকার তার পরিকল্পনা মোতাবেক দেশপ্রেমিক রাজনৈতিক নেতৃত্বকে হত্যা করে দেশকে নেতৃত্বশূন্য করার যে ষড়যন্ত্র করছে এ মামলার রায় তার একটি অংশ মাত্র।’তিনি বলেন, ২০০৪ সালের ১ এপ্রিল মধ্যরাতে অস্ত্র আটকের ঘটনায় কর্ণফুলি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বাদী হয়ে দুটি পৃথক মামলা দায়ের করেন। এই মামলার এফ.আই.আর- এ মাওলানা নিজামীর নাম ছিল না । একই বছরের ১১ জুন দাখিল করা প্রথম চার্জশিটেও নিজামীর নাম ছিল না।জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত আমির বলেন, সরকারের নির্দেশনা মোতাবেক ২০১১ সালের ২৬ জুন দু’টি মামলায় অধিকতর তদন্ত শেষে মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীকে অভিযুক্ত করে সরকারের রাজনৈতিক প্রতিহিংসা চরিতার্থ করার নীলনকশা বাস্তবায়নের জন্য চার্জশিট জমা দেয়া হয়।তিনি অভিযোগ করেন, সাজানো চার্জশিটের ভিত্তিতে সরকার বিচারের নামে প্রহসনের আয়োজন করে। সরকারের নির্দেশনা মোতাবেক কথিত চোরাচালান ও অস্ত্র মামলায় মৃত্যুদণ্ডের যে রায় ঘোষণা করা হয়েছে তা নজিরবিহীন।

রায়ে বিস্ময় প্রকাশ করে মকবুল আহমাদ বলেন, ‘মাওলানা নিজামী ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। আমরা আইনগতভাবে ও রাজনৈতিকভাবে সরকারের ষড়যন্ত্রের মোকাবেলা করবো।’তিনি বলেন, ‘বিচারটি শুরু থেকেই প্রশ্নবিদ্ধ ও অস্বচ্ছ প্রক্রিয়ায় অগ্রসর হয়েছে। মামলার গুরুত্বপূর্ণ সাক্ষীদেরকে অভিযুক্ত ব্যক্তির আইনজীবীকে যথাযথভাবে জেরা করার সুযোগ দেয়া হয়নি।’জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত আমির বলেন, ‘আমরা শুরু থেকেই ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত হওয়ার আশঙ্কা করছিলাম। আমাদের আশঙ্কাই সত্যে পরিণত হলো।’

তিনি দাবি করেন, ‘সরকার তার অঙ্কিত ছকে বিচারের নামে প্রহসনের আয়োজন করে দেশের বিচার ব্যবস্থাকে ধ্বংসের যে ষড়যন্ত্র করছে, আজকের রায়ের মাধ্যমে তার আর এক ধাপ পূরণ হলো মাত্র। জনগণ সরকার নির্দেশিত ছকের এই রায় প্রত্যাখ্যান করেছে।’