চাকরি থেকে অবসরের বয়স সীমা কোন দেশে কখন কেমন

0
2553

চাকরি থেকে অবসরের বয়স সীমা কোন দেশে কখন কেমন

সারা বিশ্বে নারী-পুরুষের চাকরিতে বয়সসীমা নির্ধারিত রয়েছে। সেটি সরকারি ও বেসরকারি দুই ক্ষেত্রেই। বিশ্বে অবসরের বয়সসীমা সবচেয়ে বেশি লিবিয়ায়। সেখানে চাকরি থেকে অবসরের বয়সসীমা সর্বোচ্চ ৭০ বছর। অন্যদিকে সংযুক্ত আরব আমিরাতে চাকরি থেকে অবসরের বয়সসীমা সর্বনিম্ন ৪৯ বছর।

বিশ্বের অধিকাংশ দেশেই অবসরের বয়সসীমা ৬০ থেকে ৬৫ বছরের মধ্যে ঘোরাফেরা করছে। তবে মানুষের আয়ু বেড়ে যাওয়ায় সব দেশই ধীরে ধীরে অবসরের বয়সসীমা বাড়াচ্ছে। ২০২৮ সাল নাগাদ অধিকাংশ দেশেই তা ৬৫ বছর ছাড়িয়ে যাবে। অর্থনৈতিক সহযোগিতা ও উন্নয়ন সংস্থা ওইসিডির সাম্প্রতিক তথ্য অনুযায়ী সারা বিশ্বে নারীদের চাকরি থেকে অবসরের গড় বয়স ৬৪ বছর ৩ মাস এবং পুরুষদের ৬৩ বছর ৭ মাস। দেখে নিন কোন দেশে অবসরের সর্বোচ্চ বয়স কত।

বাংলাদেশ : বাংলাদেশে একসময় সরকারি চাকরিতে প্রবেশের সর্বোচ্চ বয়স ছিল ২৫ বছর আর অবসরের বয়স ৫৫ বছর। স্বাধীন বাংলাদেশের শুরুর দিক থেকে চাকরিতে প্রবেশের সর্বোচ্চ বয়স ২৭ বছর আর অবসরের বয়স ৫৭ বছর করা হয়। এ অবস্থা প্রায় ২০ বছর ধরে চলেছে। ১৯৮০-এর দশকে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে সেশনজটের ফলে শিক্ষার্থীদের অধিকাংশ স্নাতক, বিশেষত স্নাতকোত্তর শিক্ষা ২৭ বছর বয়সের মধ্যে শেষ করতে পারছিল না। বিষয়টি অনুধাবন করে ১৯৯১ সালে ১৩তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের আগে সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়স তিন বছর বাড়িয়ে ৩০ বছরে উন্নীত করে। তখনও অবসরের বয়স ৫৭ বছরই থেকে যায়। যুক্তিসঙ্গতভাবে তখন ১৩তম বিসিএস ক্যাডারদের এবং এর সমসাময়িক সরকারি চাকরিজীবীদের অবসরের বয়সও তিন বছর বাড়িয়ে ৬০ বছর করা দরকার ছিল। তবে সরকার ১৩তম বিসিএসে উত্তীর্ণদের অবসরের বয়স হওয়ার অনেক আগেই ২০১২ সালে দুই বছর বাড়িয়ে অবসরের বয়স ৫৯ বছরে উন্নীত করে। অল্পদিনের মধ্যেই মুক্তিযোদ্ধা কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অবসরের বয়স ৬০ বছর করা হয়। এটি এখনও বলবৎ আছে।

ভারত: ভারতে সরকারি চাকরি থেকে পুরুষ ও মহিলাদের অবসরের বয়সসীমা ৬০ বছর। তবে সুপ্রিমকোর্টের বিচারকদের ক্ষেত্রে তা পাঁচ বছর বেশি, অর্থাৎ ৬৫ বছর। অন্যদিকে বেসরকারি চাকরির ক্ষেত্রে ভারতে অবসরের বয়সসীমা ৫৮ বছর

নেপাল : নেপালে সরকারি চাকরি থেকে অবসর নেওয়ার সর্বোচ্চ বয়সসীমা বর্তমানে ৫৮ বছর। তবে আগামী দুই বছরের মধ্যে তা বাড়িয়ে ৬০ বছর করার পরিকল্পনা রয়েছে নেপালে  সরকারের।

শ্রীলঙ্কা: সার্কভুক্ত এই দ্বীপ দেশটিতে চাকরি থেকে অবসরের বয়সসীমা বর্তমানে ৬০ বছর। তবে তারপরেও চুক্তিভিত্তিক নিয়োগে সেটি ৬৭ বছর পর্যন্ত করা যেতে পারে।

পাকিস্তান: পাকিস্তানেও সরকারি চাকরি থেকে অবসরের বয়স ৬০ বছর। তবে ইমরান খান সরকার এটি ৬২ বছরে উন্নীত করার পরিকল্পনা করছে। পাশাপাশি মেডিকেল কলেজগুলোতে ডাক্তারদের চাকরি থেকে অবসরের বয়সসীমা ৬৫ বছর করারও পরিকল্পনা রয়েছে।

চীন: চীনে চাকরি ক্ষেত্রে নারী-পুরুষের বৈষম্য বেশ স্পষ্ট। সেখানে নারীরা সর্বোচ্চ ৫০ বছর পর্যন্ত চাকরি করতে পারেন, তবে পুরুষদের ৬০ বছর পূর্ণ হওয়া পর্যন্ত চাকরি করার সুযোগ রয়েছে।

সংযুক্ত আরব আমিরাত: সংযুক্ত আরব আমিরাতের নাগরিকদের অবসর নেয়ার সর্বোচ্চ বয়স মাত্র ৪৯ বছর৷ এটি বিশ্বে চাকরি থেকে অবসরের সবচেয়ে কম বয়সের সময়সীমা। তবে বিদেশিরা স্বাভাবিক অবস্থায় ৬০ বছর এবং মন্ত্রণালয়ের অনুমতিসাপেক্ষে ৬৫ বছর পর্যন্ত চাকরি করতে পারেন৷

লিবিয়া : ২০১৭ সালে দেশটিতে অবসরের বয়স ৬৫ থেকে বাড়িয়ে ৭০ বছর করা হয়। তবে চাইলে বয়স ৬৫ হলেও অবসর নেওয়া যায়। সরকারিভাবে লিবিয়াতেই অবসরের বয়সসীমা বিশ্বে সর্বোচ্চ।

জাপান: ১৯৯৭ সাল পর্যন্ত জাপানের চাকরি থেকে অবসরের সর্বোচ্চ বয়স ছিল ৫৫৷ তবে ১৯৯৮ সালে তা বাড়িয়ে ৬০ বছর করা হয়৷ তারপর থেকে অবসরের বয়সসীমা ধীরে ধীরে বাড়ানো হচ্ছে৷ এখন যে কেউ ৬২ বছর ৭ মাস পর্যন্ত চাকরি করতে পারেন৷ জাপানি নাগরিকদের গড় আয়ু ক্রমেই বাড়ার কারনে, ২০২৫ সালের মধ্যে তা বেড়ে ৬৫ বছর হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে৷

অস্ট্রেলিয়া, বেলজিয়াম: এই দুই দেশে অবসরের বয়স এখন সাড়ে ৬৫ বছর৷ তবে ২০২৩ সালে তা ৬৭ বছর করা হবে৷ তারপর থেকে বছরে ছয় মাস করে বাড়িয়ে ২০৩৫ সালে অবসরের বয়স ৭০ করার কথা ভাবছে দুটি দেশের সরকার৷

রাশিয়া : রাশিয়াতে নারী আর পুরুষের চাকরি থেকে অবসরের বয়স এক নয়। নারীদের অবসরের বয়সসীমা ৫৫ আর পুরুষদের ৬০ বছর ৬ মাস। এটি ২০১৯-এ বছরই করেছেন প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন।

আইসল্যান্ড, নরওয়ে: ইউরোপের এই দুটো দেশে অবসরের সর্বোচ্চ বয়স ৬৭। যেটা অবসরের সর্বোচ্চ বয়সসীমার বেশ ওপরের দিকেই রয়েছে।

ব্রিটেন: ব্রিটেনেও এক্ষেত্রে নারী-পুরুষের সমান অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়নি৷ পুরুষদের চাকরি থেকে অবসর নেয়ার বয়স ৬৫ বছর আর নারীদের ৬০ বছর৷ তবে ২০২০ সালের মধ্যে নারী-পুরুষের জন্য অভিন্ন বয়স নির্ধারণের পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের৷

নেদারল্যান্ডস, ফিনল্যান্ড, ফ্রান্স, জার্মানি ও স্পেন: এই দেশগুলোতে অবসর নেয়ার বয়স ৬৫ থেকে ৬৬ বছরের মধ্যে৷ জার্মানিতে চাইলে ৬৫ বছরের আগেও অবসর নেয়া যায়, তবে পেনশন পাওয়া যায় ৬৫ বছরের পর থেকে৷

যুক্তরাষ্ট্র: যুক্তরাষ্ট্রে অবসরের গড় বয়স ৬৬ বছর৷ সাধারণভাবে বয়সসীমা ৬৫ নির্ধারণ করেছে সরকার৷ তবে যাঁদের জন্ম ১৯৩৮ সাল বা তার পরে, তাঁরা ৬৫ বছরের পরেও চাকরির মেয়াদ বাড়াতে পারেন৷ ১৯৫৯ সালের পরে জন্ম নেয়া ব্যক্তিদের ৬৭ বছর পর্যন্ত চাকরি করার সুযোগ রয়েছে৷