সাদার্ন ইউনিভার্সিটির উদ্যোগে পুরকৌশল বিষয়ক আন্তর্জাতিক সম্মেলন সম্পন্ন

0
738

 

সম্মেলনের কি-নোট স্পিকার পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের সাবেক প্রধান কো-অর্ডিনেটর মেজর জেনারেল আবু সাঈদ মাসুদ বলেছেন, স্বপ্ন নয়, পদ্মা সেতু এখন দৃশ্যমান বাস্তবতা। অনেক বাধা এবং ষড়যন্ত্র হয়েছে পদ্মা সেতু নিয়ে। দেশি-বিদেশি বাধা আর ষড়যন্ত্রের পরে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজস্ব অর্থায়নেই পদ্মা সেতু করার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। আজ সেই স্বপ্ন বাস্তবায়িত হয়েছে। আন্তরিক ইচ্ছা থাকলে সব কিছুই সম্ভব । বাংলাদেশ যে অসম্ভবকে সম্ভব করতে পারে তার প্রমাণ পদ্মা সেতু। এই সেতু চালু হলে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন আরও ত্বরান্বিত হবে। এসময় তিনি পদ্মা সেতু নির্মাণের উদ্যোগ ও বাস্তবায়ন সম্পর্কে নিজের অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন।

সাদার্ন ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ’র পুরকৌশল বিভাগের উদ্যোগে দুদিনব্যাপী রিসার্চ অ্যান্ড ইনোভেশন ইন সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং (আইসিআরআইসিই)’ শীর্ষক আন্তর্জাতিক সম্মেলন-২০২০ প্রবন্ধ উপস্থাপনকালে এসব কথা বলেন তিনি।

দু’ দিনব্যাপী সম্মেলনের গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় হোটেল পেনিনসুলায় সমাপণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ও বর্তমানে ইউএসটিসি’র উপাচার্য প্রফেসর ড. জাহাঙ্গীর আলম । শুক্রবার সকালে ইনস্টিটউশন অব ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশ (আইইবি) চট্টগ্রাম কেন্দ্রে সম্মেলনের উদ্বোধন করেন আইইবি সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং ডিভিশনের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার হাবিবুর রহমান। সাদার্ন ইউনিভার্সিটির পুরকৌশল বিভাগের উপদেষ্টা ও চুয়েটের সাবেক উপাচার্য প্রফেসর ইঞ্জিনিয়ার মোজাম্মেল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে অতিথিদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সাদার্ন ইউনিভার্সিটির উদ্যোক্তা ও প্রতিষ্ঠাতা প্রফেসর সরওয়ার জাহান, সাদার্ন ইউনিভার্সিটির বাংলাদেশ’র ভারপ্রাপ্ত উপ-উপাচার্য ও কনফারেন্স সেক্রেটারি অধ্যাপক (প্রকৌশলী) এম আলী আশরাফ, বিজ্ঞান ও প্রকৌশল অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. শরীফুজ্জামান, আমিরিকা ও অস্ট্রেলিয়াসহ বিভিন্ন দেশের প্রকৌশলী ও গবেষকগণ , বিভিন্ন বিভাগের উপদেষ্টা, বিভাগীয় প্রধানসহ প্রকৌশলীবৃন্দ। এদিকে সম্মেলনে উপলক্ষে বাণী দিয়েছেন স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়ন মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম।

সমাপনী অনুষ্ঠানে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রফেসর ড. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, গবেষণাধর্মী শিক্ষা অর্জন করতে না পারলে বর্তমান প্রতিযোগিতার বিশ্বে সফলতা অর্জন সম্ভব নয়। বিশ্ব যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছে আমাদের সেভাবে এগিয়ে যেতে হবে যুগোপযোগী শিক্ষার মাধ্যমে। তথ্য প্রযুক্তির যুগে জ্ঞানের আদান প্রদান একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রক্রিয়া। তরুণ গবেষকদের উচিৎ প্রবীণদের অভিজ্ঞতাসমূহ কাজে লাগিয়ে নিজেদের আরও সমৃদ্ধ করা। আন্তর্জাতিক সম্মেলন আয়োজন করার লক্ষ্যই হলো বিশ্বের মেধাবী গবেষকদের সাথে পারস্পরিক যোগাযোগের মাধ্যমে জ্ঞানের আদান প্রদান করা।

২য় দিনের আয়োজন সাদার্ন ইউনিভার্সিটির স্থায়ী ক্যাম্পাস বায়েজিদ আরেফিন নগরে অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনের মূল প্রতিপাদ্য বিষয়গুলো হলো: স্ট্রাকচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং, আর্থকোয়াক ইঞ্জিনিয়ারিং, জিওটেকনিক্যাল অ্যান্ড ফাউন্ডেশন ইঞ্জিনিয়ারিং, ট্রাফিক অ্যান্ড ট্রান্সপোর্টেশন ইঞ্জিনিয়ারিং, ওয়াটার রিসোর্স ইঞ্জিনিয়ারিং, ফ্লাড কন্ট্রোল অ্যান্ড মিটিগেশন, এনভায়রনমেন্টাল ইঞ্জিনিয়ারিং, মেটেরিয়ালস্ ইঞ্জিনিয়ারিং, কনস্ট্রাকশন ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট, আর্বানাইজেশন অ্যান্ড বিল্ট এনভায়রনমেন্ট, অ্যাডভান্সেস ইন সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং এডুকেশন। সম্মেলনে আমিরিকা ও অস্ট্রেলিয়াসহ বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলে কর্মরত সিভিল ইঞ্জিনিয়ার এবং গবেষকদের পাঠানো গবেষণা যাচাই-বাছাইয়ের পর ৪৭টি নির্বাচিত গবেষণাপত্র উপস্থাপন করা হয় । এছাড়াও ৩টি কি-নোট সেশন ও ৮টি টেকনিক্যাল সেশন। দু’দিনের সম্মেলনে কি-নোট স্পিকার ছিলেন অ্যামেরিকান সোসাইটি অব ইঞ্জিনিয়ারিং এডুকেশন, এক্সটার্নাল অ্যাফেয়ার্স এর সাবেক ডিরেক্টর প্রফেসর ড. উইলিয়াম ই কেলি, পি.ই হাউজিং অ্যান্ড বিল্ডিং রিসার্স ইনস্টিটিউট এর ডিরেক্টর জেনারেল ইঞ্জিনিয়ার মোহাম্মদ শামিম আক্তার এবং অস্ট্রেলিয়ার ইউনিভার্সিটি অব সাউদার্ন কুইন্সল্যান্ড এর সিনিয়র লেকচারার ড. রেজাউল চৌধুরী। সমাপণী পর্বে বেস্ট পেপার অ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হয়।