মহাকাশে বিত্তশালীদের পর্যটন ব্যবসার প্রতিযোগিতা শুরু

0
61

মহাকাশে বিত্তশালীদের পর্যটন ব্যবসার প্রতিযোগিতা শুরু

বিশ্বের বিত্তশালী কয়েকজন ব্যক্তির মধ্যে মহাকাশে পর্যটন ব্যবসা শুরু করার প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের নিউ মেক্সিকো থেকে পাঁচজন আরোহীকে নিয়ে মহাকাশ অভিমুখে উড়ে যান ব্রিটিশ ধনকুব রিচার্ড ব্র্যানসন সম্প্রতি তার কোম্পানি ভার্জিন গ্যালাকটিকের ইউনিটি রকেটে চড়ে মহাকাশের দ্বারপ্রান্ত থেকে ঘুরে এসেছেন। তার রকেটের গতি ছিল ঘণ্টায় তিন হাজার কিলোমিটার। এক পর্যায়ে তারা কয়েক মিনিট ধরে ভরশূণ্যতার অভিজ্ঞতা অর্জন করেন। এসময় তাদেরকে রকেটে ভেতরে ভেসে বেড়াতে দেখা যায়।

অনলাইন সুপারমার্কেট অ্যামাজনের মালিক জেফ বেজোসও প্রতিষ্ঠা করেছেন স্পেস কোম্পানি ব্লু অরিজিন। এমাসেই তাদের নিজস্ব রকেটে করে তার মহাকাশে যাওয়ার কথা রয়েছে।

আরেক প্রযুক্তি ব্যবসায়ী ইলন মাস্কও মহাকাশে যাওয়ার জন্য তার স্পেস এক্স কোম্পানি থেকে কম খরচে মহাকাশে যাওয়ার রকেট তৈরির চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।”ইলন মাস্ক একটা মহাকাশযান তৈরিতে কাজ করছেন যার নাম স্টারশিপ। এর পরীক্ষা নিরীক্ষাও চলছে। এর মধ্যে অনেকগুলো পরীক্ষা হয়ে গেছে। এই মহাকাশ যানে করে মঙ্গল গ্রহে যাওয়ার একটা পরিকল্পনা আছে।

মহাকাশ জয় করার স্বপ্ন মানুষের বহু দিনের। অনেক নভোচারী ইতোমধ্যে পৃথিবীর বাইরে থেকে ঘুরে এসেছেন। সাতজন ধনী ব্যক্তি বেড়াতে গিয়েছিলেন আন্তর্জাতিক স্পেস স্টেশনেও। এখনও পর্যন্ত মোট ৫৮০ জন মহাকাশে গেছেন। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে, সাধারণ মানুষজনও কি মহাশূন্যে বেড়াতে যেতে পারবো? এই প্রশ্নটি জোরালো হয়েছে স্যার রিচার্ড ব্র্যানসনের মহাকাশে উঁকি দিয়ে আসার পর। তিনি নিজেও বলেছেন, এরকম অভিজ্ঞতা মানুষের জীবনে একবারই হয়।

পৃথিবী থেকে যাত্রা শুরু করে ৫৩ মাইল উপরে গিয়ে রিচার্ড ব্র্যানসনের মাটিতে ফিরে আসতে সময় লেগেছে এক ঘণ্টার কিছু বেশি।রিচার্ড ব্র্যানসন গিয়েছিলেন যেখানে মহাকাশ এবং বায়ুমণ্ডলের সীমান্ত সেখানে। এই জায়গাটি কারমেন এলাকা নামে পরিচিত। এখান থেকেই মহাকাশের শুরু।ন্যাশনাল ওশানোগ্রাফিক এন্ড এটমোসফেয়ারিক এডমিনিস্ট্রেশন বা নোয়া-র সংজ্ঞা অনুসারে পৃথিবী থেকে ৬২ মাইল উপরে কারমেন রেখা এবং তার পরেই মহাকাশের শুরু।সেই হিসাবে রিচার্ড ব্র্যানসন মহাকাশে যাননি।অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রের বিমান বাহিনী ও মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্র নাসার সংজ্ঞা অনুযায়ী মহাকাশের শুরু ৫০ মাইল উপরে।

সঠিক অবকাঠামো তৈরি করার পরই মহাকাশে পর্যটন শুরু করা সম্ভব। যদি এরকম একটা যান তৈরি করা যায় যা দিয়ে মহাকাশে গিয়ে ফেরত আসার পর, সেটি রক্ষণাবেক্ষণের পর ওই একই যান দিয়ে আবার মহাকাশে যাওয়া যায়, তাছাড়া পৃথিবীর বাইরে কক্ষপথে বা কোথাও জ্বালানি তৈরি করা যায় তাহলেই এই পর্যটন সহজ হবে ।আশা করা যায় আগামী ১০ বছরের মধ্যেই এসব অবকাঠামো হয়ে যাবে আর তখন সত্যিকারের মহাকাশ পর্যটন শুরু হবে।

ব্লু অরিজিনের কয়েকশ টিকিট বিক্রি হয়ে গেছে যার দাম দুই লাখ মার্কিন ডলার। ভার্জিন গ্যালাকটিকও ছ’শোর মতো টিকেট অগ্রিম বিক্রি করেছে আড়াই লাখ ডলার দরে। তবে অনেকেরে ধারনা মোটামুটি ১০ বছর পর ৫০ হাজার ডলারে মানুষ হয়তো চাঁদে যেতে পারবে। এবং এই পরিমাণ অর্থ খরচ করার মতো মানুষ এই পৃথিবীতে অনেকেই আছেন।