এবছর যত ভয়াবহ প্রাকৃতিক দুর্যোগ

0
291

এবছর যত ভয়াবহ প্রাকৃতিক দুর্যোগ

পৃথিবীজুড়ে অগ্নিকাণ্ড ভয়বহ রূপ নিয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়াসহ বিভিন্ন দেশে তাপমাত্রাজনিত কারণে দাবানলের ঘটনা বেড়েই চলেছে। চলতি মাসে ক্যালিফোর্নিয়ায় বনাঞ্চল প্রধান এলাকায় ৮২ মাইলজুড়ে দাবানল ছড়িয়ে পড়ে। অনেক দেশে অগ্নিকাণ্ড বা দাবানলের ঘটনা স্বাভাবিক হয়ে গেছে। আগুন লাগার ফলে সংশ্লিষ্ট এলাকায় দেখা দিচ্ছে খরা। নষ্ট হচ্ছে গাছপালা, ফসলের ক্ষেত। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এটা জলবায়ু পরিবর্তনের ফল।

গ্রীষ্মকালে অতিবৃষ্টির কারণে ইউরোপের জার্মানি, নেদারল্যান্ডস, বেলজিয়ামে ভয়াবহ বন্যা দেখা দিয়েছে৷ আকস্মিক এ বন্যায় শুধুমাত্র জার্মানি ও বেলজিয়ামেই দুইশ নয় জন প্রাণ হারান৷ আর ঘরছাড়া হয়েছেন শত শত মানুষ৷ এমন বন্যা গত এক দশকেও দেখেনি ইউরোপ৷

অতিবৃষ্টির কারণে বিশ্বের সবচেয়ে দুই জনবহুল রাষ্ট্র চীন এবং ভারতেও বন্যা দেখা দিয়েছে৷ হতাহতের সংখ্যা সেখানেও কম নয়৷ বিজ্ঞানীদের ধারণা জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুপ প্রভাবের কারণেই এমন পরিস্থিত তৈরি হচ্ছে যা আসছে বছরগুলোতেও হতে পারে৷

ইউরোপ কিংবা এশিয়া যখন বন্যায় নাকাল, জলবায়ু পরিবর্তনের জেরে শীতল আবহাওয়ার দেশ যুক্তরাষ্ট্র ও ক্যানাডার কিছু অঞ্চল তখন উচ্চ তাপমাত্রায় পুড়ছে৷ দক্ষিণ ক্যানাডার লিটোন অঞ্চলে সর্বোচ্চ ৪৯.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে৷স্বাভাবিক মৃত্যুর হার বেড়েছে প্রায় তিনগুণ  এই প্রদেশে মারা গিয়েছেন ৪৮৬ জন।

উষ্ণ তাপমাত্রায় সৃষ্ট তীব্র গরম কমে আসলেও আবহাওয়ার শুষ্কতার কারণে দেখা দিচ্ছে অন্য বিপদ৷ যুক্তরাজ্যের অরিগন অঞ্চলে শুষ্ক আবহাওয়ার কারণে সৃষ্ট দাবানলে দুই সপ্তাহে বিশাল এলাকা পুড়ে গেছে৷

এদিকে, দক্ষিণ অ্যামেরিকার দেশ ব্রাজিল দগ্ধ হচ্ছে তীব্র খরায়৷ এমন খরা গত একশ বছরেও দেখেনি দেশটি৷ এর ফলে পৃথিবীর ফুসফুস হিসেবে খ্যাত আমাজনে দাবানল ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে৷

তীব্র খরায় কারণে ফসল উৎপাদন না হওয়ায় আফ্রিকার দেশ মাদাগাস্কারের প্রায় ১১ লাখ ৪০ হাজার মানুষ তীব্র খাবার সংকটে পড়েছে৷ পরিস্থিতি এমন দাঁড়িয়েছে যে সেখানকার মানুষ ক্ষুধা মেটাতে ক্যাকটাস ও পোকামাকড় খেয়ে জীবন বাঁচানোর চেষ্টায় আছে৷

ডিডব্লিও