মহান বিজয় দিবস পালিত

0
741

 

যথাযোগ্য মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে পালিত হয়েছে ৪৯তম মহান বিজয় দিবস। ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে দেশের জন্য জীবন দেয়া শহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে সোমবার (১৬ ডিসেম্বর) দেশে-বিদেশে বসবাসরত বাংলাদেশিরা পালন করেছেন এবারের বিজয় দিবস।

৩০ লাখ মানুষের জীবন ও কয়েক লাখ নারীর সম্ভ্রম কেড়ে নেয়া নয় মাসের রক্তাক্ত যুদ্ধের পর ১৯৭১ সালের এ দিনে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর আত্মসমর্পণের মাধ্যমে পৃথিবীর মানচিত্রে বাংলাদেশ নামে একটি স্বাধীন দেশের অভ্যুদয় ঘটে।

সরকারের পাশাপাশি বিভিন্ন সামাজিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং সংস্থা নানা কর্মসূচির মাধ্যমে দিবসটি উদযাপন করেছে। এদিন ভোরে ৩১ বার তোপধ্বনির মাধ্যমে দিবসের সূচনা হয়।

সূর্যোদয়ের সময় রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাভার জাতীয় স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান। পরে বীর মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের পরিবারের সদস্য, বিদেশি কূটনীতিক, আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতা এবং সর্বস্তরের মানুষ শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

সরকারি এ ছুটির দিনে দেশের সব সরকারি, আধাসরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও বেসরকারি ভবনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। আলোকসজ্জায় সজ্জিত করা হয়েছে গুরুত্বপূর্ণ ভবন ও স্থাপনা।

জাতীয় দৈনিকগুলো বিশেষ ক্রোড়পত্র প্রকাশ করেছে। সেই সাথে সরকারি ও বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল ও রেডিওতে মুক্তিযুদ্ধের তাৎপর্য তুলে ধরে বিশেষ অনুষ্ঠানমালা প্রচার করা হচ্ছে।

দিনের কর্মসূচি হিসেবে রাজধানীর জাতীয় প্যারেড স্কয়ারে বর্ণাঢ্য কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠিত হয়। রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ প্রধান অতিথি হিসেবে কুচকাওয়াজ পরিদর্শন ও সালাম গ্রহণ করেন। অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও উপস্থিত ছিলেন।

দেশের শান্তি, সমৃদ্ধি ও অগ্রগতি কামনা করে মসজিদ, মন্দির, গির্জা ও প্যাগোডাসহ অন্য ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানগুলোতে বিশেষ প্রার্থনার আয়োজন করা হয়।

বিকালে বঙ্গভবনে মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানে সংবর্ধনার আয়োজন করেন রাষ্ট্রপতি। প্রধানমন্ত্রীও সেখানে যোগদেন। সেই সাথে প্রধানমন্ত্রী রাজধানীর মোহাম্মদপুরে যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা পুনর্বাসন কেন্দ্রে (মুক্তিযোদ্ধা টাওয়ার-১) যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা এবং শহীদ পরিবারের সদস্যদের ফুল, ফল ও মিষ্টান্ন পাঠিয়ে বিজয়ের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

এদিন বিকেলে প্রধানমন্ত্রী তার সরকারি বাসভবন গণভবনে ১০ টাকা মূল্যমানের একটি স্মারক ডাকটিকিট ও উদ্বোধনী খাম এবং ৫ টাকা মূল্যমানের ডাটাকার্ড অবমুক্ত করেন। এ উপলক্ষে একটি বিশেষ সীলমোহর ব্যবহার করা হয়।

  • অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আকম মোজাম্মেল হক, ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার, ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিব নুর-উর-রহমান এবং বাংলাদেশ ডাক বিভাগের মহাপরিচালক সুধাংশু শেখর ভদ্র উপস্থিত ছিলেন।

এদিন বিদেশে অবস্থিত বাংলাদেশের মিশনগুলো জাতীয় পতাকা উত্তোলন এবং আলোচনা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও সংবর্ধনার আয়োজন করে। জেলা পর্যায়ে মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ পরিবারের সদস্যদের সংবর্ধনা দেয়া হয়।

সুবিধাবঞ্চিত শিশুরা রাজধানীর শিশু পার্কে বিনা টিকিটে প্রবেশের সুযোগ পায়। দেশব্যাপী এতিমখানা, বৃদ্ধাশ্রম, হাসপাতাল, জেলখানা ও সরকারি শিশুসদনসহ অনুরূপ প্রতিষ্ঠানগুলোতে উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করা হয়।