করোনা ভাইরাসে মৃত্যু বেড়ে ৩১১৯

0
366

বিশ্বব্যাপী আতঙ্ক সৃষ্টি করা মরণঘাতি করোনা ভাইরাসে দীর্ঘ হয়েই চলেছে আক্রান্তের সংখ্যা। যেখানে মধ্যপ্রাচ্যের ইসলামী প্রজাতান্ত্রিক দেশ ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ খোমেনির একজন পরমর্শক উপদেষ্টাও রয়েছেন।

বিশ্বের অর্ধশতাধিক দেশে ছড়িয়ে পড়া ভাইরাসটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত আরও ৭৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে আজ মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত করোনা প্রকোপে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৩ হাজার ১১৯ জনে দাঁড়িয়েছে। এরমধ্যে ২ হাজার ৯৪৩ জনই চীনা নাগরিক।

যেখানে চীনের একজন শীর্ষ চিকিৎসক রয়েছেন। করোনা ভাইরাসের লড়াইয়ে টানা ৩৩ দিন ডিউটি পালন করতে গিয়ে হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে প্রাণ হারান তিনি। শুক্রবার ৩২ বছর বয়সী ব্যক্তি কর্তবরত অবস্থায় মারা যান বলে সোমবার চীনা গণমাধ্যম সিনহুয়া জানায়।

অপরদিকে চীনে সুস্থ হওয়ার হার বাড়লেও বিশ্বজুড়ে কমছে না প্রকোপ। হাজারো চেষ্টা করে কিছুটা নিয়ন্ত্রণে রাখা গেলেও আক্রান্ত হচ্ছেই। বিশেষ করে চীনের বাহিরে দক্ষিণ কোরিয়া, ইতালি ও ইরানে আশঙ্কাজনকহারে বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা।

গত ডিসেম্বরে শুরু হওয়া মরণঘাতি এ ভাইরাসটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে চীনসহ বিভিন্ন দেশের দুই হাজার নাগরিক আক্রান্ত হয়েছেন। মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ৯১ হাজার জনে দাঁড়িয়েছে।

অন্যদিকে চীনের হাসপাতালগুলোতে নিবিড় পর্যবেক্ষণে থাকা আরও তিন হাজার নাগরিককে বাড়িতে ফেরার অনুমতি দেয়া হয়েছে। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত করোনা থেকে রেহাই পেয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৪৮ হাজারেরও বেশি মানুষ।

আজ মঙ্গলবার চীনা সংবাদমাধ্যম সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট দেশটির জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশনের বরাত দিয়ে এ খবর জানিয়েছে।

মহামারি আকার ধারণ করা ভাইরাসটিতে চীনের বাহিরে সবচেয়ে বেশি প্রাণহানি ঘটেছে ইসলামী প্রজাতন্ত্রের দেশ ইরানে। দেশটিতে মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত আরও ১২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে দেশটিতে করোনায় মারা গেলেন ৬৬ জন। যেখানে দেশটির সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতার আয়াতুল্লাহ খোমেনির একজন উপদেষ্টা ও একজন সংসদ সদস্যও রয়েছেন। আর আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে প্রায় সহস্রাধিক। যেখানে পাঁচজন সাংসদও রয়েছেন।

এদিকে ইরানের মতোই ভয়াবহ করোনা ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে ইতালিতে। দেশটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ১৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত ৫২ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ২ হাজার ৩৬ জনে পৌঁছেছে।

নিহতের সংখ্যায় কিছুটা পিছিয়ে থাকলেও চীনের বাহিরে আক্রান্তের হার সবচেয়ে বেশি দক্ষিণ কোরিয়ায়। দেশটিতে মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত আরও ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে ২৮ জনের প্রাণ গেল। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ছয়শরও বেশি নাগরিকের দেহে করোনা সনাক্ত করেছে দেশটির চিকিৎসা বিভাগ। এ নিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪ হাজার ৮১২ জনে। করোনা ঠেকাতে দেশটির সব শহরজুড়েই প্রতিষোধক ছেটানো হচ্ছে।

জাপানি প্রমোদতরী ডায়মন্ড প্রিন্সেসে প্রাণ হারিয়েছেন ৬ জন। গত ৪ ফেব্রুয়ারি থেকে ওই প্রমোদতরীর যাত্রীদের কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছিল। যেখানে আক্রান্তের সংখ্যা এখন পর্যন্ত ৭০৬ জন।

প্রথমদিকে না হলেও আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা বাড়তে শুরু করেছে ট্রাম্পের দেশ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে। দেশটিতে এখন পর্যন্ত ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি ৯১ জন।

এছাড়াও, জাপানে-৬, অস্ট্রেলিয়ায়-১, হংকংয়ে-২, ফ্রান্সে-২, তাইওয়ানে-১, জার্মানিতে-২ ও ফিলিপাইনে একজন মারা গেছেন।

তবে বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত করোনা সন্ধান মিলেনি। তবে ইতালিতে এক বাংলাদেশির শরীরের গতকাল সোমবার করোনা সনাক্ত করেছে দেশটির চিকিৎসকরা। আর সিঙ্গাপুরে করোনায় আক্রান্তদের মধ্যে দুই বাংলাদেশি সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরেছেন। বাকিদের অবস্থা স্থিতিশীল রয়েছে।

এমন ভয়াবহ পরিস্থিতিতে বিশ্বজুড়ে ‘করোনা ভাইরাসকে‘সর্বোচ্চ ঝুঁকি’ হিসেবে চিহ্নিত করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। সংস্থাটির ঝুঁকি নির্ণয়ে এটি সর্বোচ্চ ধাপ। সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় এক সংবাদ সম্মেলনে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান ড. টেড্রস অ্যাডহানম গেব্রেইয়েসুস এই ঘোষণা দেন বলে বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে ড. টেড্রস অ্যাডহানম বলেন , ‘এই জিনিসটি (করোনাভাইরাস) এখন যেকোনো দিকে মোড় নিতে পারে। এর যে ঝুঁকি সেটাকে আমরা দুর্বল করে দিতে পারছি না। এজন্য আজ আমরা বলছি, করোনাভাইরাসের বৈশ্বিক ঝুঁকি এখন সর্বোচ্চ পর্যায়ে। আগে আমরা বলেছি, উচ্চ ঝুঁকি। এখন বলছি সর্বোচ্চ ঝুঁকি।’

তিনি আরও বলেন, বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এই ভাইরাস চিহ্নিত করা যাচ্ছে এখনও। তবে স্বয়ংক্রিয়ভাবে মানুষের মধ্যে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার প্রমাণ মেলেনি।’

অপরদিকে, করোনার ভয়বাহতায় প্রথম দিকে উৎপত্তিস্থল চীনে অর্থনৈতিক সংকট দেখা দিলেও সম্প্রতি করোনার প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় চরম হুমকিতে পড়েছে বিশ্ব অর্থনীতি। বিশেষ করে বাংলাদেশ ও জাপানসহ চীন নির্ভর আমদানিকারক দেশগুলো।

এদিকে, বিশ্বব্যাপী আতঙ্ক ছড়ানো করোনা ভাইরাসটি যাতে ছড়িয়ে না পড়ে সে ভয়ে ওমরাহ যাত্রী ও মসজিদে নববী ভ্রমণ সাময়িক স্থগিত করেও শেষ পর্যন্ত রক্ষা হলো না সৌদি আরবের। দেশটিতে প্রথমবারের মত সোমবার একজনের দেহে করোনার সন্ধান মিলেছে। আক্রান্ত ওই ব্যক্তি সম্প্রতি বাহরাইন থেকে ফিরেছেন বলে জানিয়েছে সৌদি চিকিৎসকরা।

গত ৩১ ডিসেম্বর হুবেই প্রদেশের উহান শহরেই প্রথম এই ভাইরাসের উপস্থিতি ধরা পড়ে। এখন পর্যন্ত এটি বিশ্বের অন্তত ৫২টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। চীনের হুবেই প্রদেশের উহানের একটি সামুদ্রিক খাবারের বাজার থেকে এই ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শুরু। অনেক দেশই তাদের নাগরিকদের চীন ভ্রমণের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে।

এ পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়ায়, বেলজিয়াম, কম্বোডিয়া, কানাডা, ফিনল্যান্ড, ফ্রান্স, জার্মানি, হংকং, ভারত, ইতালি, জাপান, ম্যাকাও, মালয়েশিয়া, নেপাল, রাশিয়া, সিঙ্গাপুর, দক্ষিণ কোরিয়া, স্পেন, শ্রীলঙ্কা, সুইডেন, তাইওয়ান, থাইল্যান্ড, ফিলিপাইন, আরব আমিরাত, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, ইরান এবং ভিয়েতনামে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ‘কোভিড-১৯ দিনে দিনে আক্রমণাত্মক হয়ে উঠছে। মানুষ থেকে মানুষে ছড়িয়ে পড়ছে দ্রুত। কিছু রোগীর কোনো লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না, তাদের মাধ্যমেও ছড়িয়ে পড়ছে।’ এই রোগের কোনো প্রতিষেধক এবং ভ্যাকসিন নেই। মৃতদের অধিকাংশই বয়স্ক যাদের আগে থেকেই শ্বাস-প্রশ্বাসজনিত জটিলতা ছিল।