করোনায় মোকাবেলায় প্রধানমন্ত্রীর ৭২ হাজার ৭৫০ কোটি টাকার প্রণোদনা

0
520
বৈশ্বিক মহামারী করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে দেশে সম্ভাব্য অর্থনৈতিক ক্ষতি মোকাবেলায় নতুন ৪টিসহ মোট ৫টি প্যাকেজ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষণা করেছেন । করোনার প্রাদুর্ভাব মোকাবেলায় যে ৫টি প্যাকেজ ঘোষণা করলেন প্রধানমন্ত্রী; এসব প্যাকেজের আওতায় মোট ৭২ হাজার ৭৫০ কোটি টাকার আর্থিক সহায়তা দেবে সরকার, যা জিডিপি’র প্রায় ২.৫২ শতাংশ।
প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন ক্রান্তিলগ্ন পার করা দেশের অনেকেই এই দুর্যোগে আশ্বস্ত হবে ৷ প্রধানমন্ত্রী রপ্তানিমুখী শিল্পের জন্য সবার আগে পাঁচ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা ঘোষণা দিয়েছিলেন । দুই ভাগ সুদে যা ঋণ হিসেবে পাবেন উদ্যোক্তারা৷ তবে মনে হচ্ছে তৈরি পোশাক খাতের মালিকরা এতে সন্তুষ্ট হতে পারেননি৷ তারা আশা করেছিলেন বিনা শর্তে অফেরতযোগ্য টাকা৷অনেকের মতে এই অসন্তোষ প্রকাশেই হাজার হাজার শ্রমিককে তারা পায়ে হাঁটিয়ে কর্মস্থলে ফিরতে বাধ্য করিয়েছেন ৷

রোববার ০৫ এপ্রিল ২০২০ প্রধানমন্ত্রী আরো বিস্তৃত আকারে প্রণোদনা প্যাকেজের ঘোষণা দিলেন৷ সেখানে সরাসরি অবশ্য তৈরি পোশাক খাতের জন্য কিছু বলা হয়নি ৷ তবে বৃহৎ, মাঝারি ও ক্ষুদ্র শিল্পের জন্য যে চার ধরনের আর্থিক প্রণোদনা ঘোষণা করা হয়েছে তার অন্তত তিনটি থেকেই তৈরি পোশাক তথা বস্ত্র খাতের মালিকরাও কম বেশি সুবিধা পাবে৷ বৃহৎ শিল্প হিসেবে সাড়ে চার শতাংশ সুদে ৩০ ‍হাজার কোটি টাকার ওয়ার্কিং ক্যাপিটাল, বাংলাদেশ ব্যাংকের ৫০০ কোটি টাকার ইউডিএফ কিংবা সাত শতাংশ সুদে পাঁচ হাজার কোটি টাকার নতুন ঋণ তহবিলের আওতার বাইরে থাকছে না তারাও৷

বিশ্ব অর্থনীতিতে আসন্ন মহামন্দার ধাক্কা ঠেকাতে সব দেশের সরকারই এখন কৌশল খুঁজছে৷ প্রথম পদক্ষেপ হিসেবে উন্নত থেকে উন্নয়নশীল সবাই অর্থিক প্রণোদনা ঘোষণা করেছে৷ ক্যানাডা, র্জামানি, অস্ট্রেলিয়া, যুক্তরাষ্ট্রের মত দেশগুলোতে যা জিডিপির সাড়ে তিন থেকে দশ ভাগের মত৷ তারা এই অর্থের বড় অংশটাই বিভিন্ন কোম্পানি, শিল্প প্রতিষ্ঠানে ঢালছে৷ কারণ সেখানে শতভাগ কর্মসংস্থানই আনুষ্ঠানিক খাত নির্ভর৷ তারপরও বেকার, নিম্ন আয়ের মানুষের জন্যেও এইসব ঘোষিত প্যাকেজে নির্দিষ্ট অঙ্কের বরাদ্দ রয়েছে৷ এরিমধ্যে যোগ্যরা সেখান থেকে বিশেষ ভাতা পেতেও শুরু করেছে৷  প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত ৭২ হাজার ৭৫০ কোটি, টাকার অঙ্কে নেহায়েত কম নয়৷ জিডিপির হিসাবে প্রায় তিন ভাগের মত৷

পরিসংখ্যান ব্যুরোর জরিপ অনুযায়ী, বাংলাদেশের কর্মসংস্থানে নিযুক্ত ছয় কোটির বেশি মানুষ৷ এর ৮৫ ভাগ বা ৫ কোটির বেশি রয়েছেন অনানুষ্ঠানিক খাতে৷ তাদের মধ্যে রয়েছেন কৃষি, র্নিমাণ, পরিবহন সহ বিভিন্ন খাতের শ্রমিক, দিনমজুর, ছোট দোকানদারসহ প্রতিদিনের গ্রাসাচ্ছদনের জন্য লড়াই করা মানুষেরা৷ যাদের বেশিরভাগেরই একদিন রোজগার না থাকা মানে এক একটি পরিবারের উপোস থাকা৷ এই পাঁচ কোটি মানুষের বাইরে আছেন দরিদ্র্য-হতদরিদ্র্য, বেকারসহ আরো কয়েক কোটি৷ প্রধানমন্ত্রী তাদের জন্য সামাজিক সুরক্ষার আওতা বাড়ানোর কথা বলেছেন৷ বিভিন্ন ভাতার সুবিধাভোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি, নগদ অর্থ প্রদান, দশ টাকা মূল্যের চাল বিতরণ এমন পাঁচটি উদ্যোগের কথা তিনি জানিয়েছেন৷ অনানুষ্ঠানিক খাতে কর্মরত ৫ কোটি শ্রমিক, চার কোটি দরিদ্র্য, শ্রমশক্তির ২৭ লাখ বেকারের ক্ষুধা নিবারণের কি ভাবে হবে তা ভাবার বিষয়৷ রবিবার সকালে গণভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলন থেকে আর্থিক সহায়তা প্যাকেজগুলো নিম্নরূপ:-

 প্যাকেজ-১: ক্ষতিগ্রস্ত শিল্প ও সার্ভিস সেক্টরের প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য ব্যাংক ব্যবস্থার মাধ্যমে স্বল্পসুদে ওয়ার্কিং ক্যাপিটাল দেওয়ার লক্ষ্যে ৩০ হাজার কোটি টাকার একটি ঋণ সুবিধা প্রণয়ন করা হবে। ব্যাংক-গ্রাহক সর্ম্পকের ভিত্তিতে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর সংশ্লিষ্ট শিল্প/ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে তাদের নিজস্ব তহবিল হতে ওয়ার্কিং ক্যাপিটাল বাবদ ঋণ দেওয়া। এ ঋণ সুবিধার সুদের হার হবে ৯ শতাংশ। প্রদত্ত ঋণের সুদের অর্ধেক অর্থাৎ ৪ দশমিক ৫০ শতাংশ ঋণ গ্রহিতা শিল্প/ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পরিশোধ করবে এবং অবশিষ্ট ৪ দশমিক ৫০ শতাংশ সরকার ভর্তুকি হিসেবে সংশ্লিষ্ট ব্যাংককে দেবে।

 প্যাকেজ-২: ক্ষুদ্র (কুটির শিল্পসহ) ও মাঝারি শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলোর ব্যাংক ব্যবস্থার মাধ্যমে স্বল্পসুদে ওয়ার্কিং ক্যাপিটাল প্রদানের লক্ষ্যে ২০ হাজার কোটি টাকার একটি ঋণ সুবিধা প্রণয়ন করা হবে। ব্যাংক-গ্রাহক সর্ম্পকের ভিত্তিতে বাণিজ্যিক ব্যাংকসমূহ সংশ্লিষ্ট ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প প্রতিষ্ঠানকে তাদের নিজস্ব তহবিল হতে ওয়ার্কিং ক্যাপিটাল বাবদ ঋণ দেবে।

এ ঋণ সুবিধার সুদের হারও হবে ৯ শতাংশ। ঋণের ৪ শতাংশ সুদ ঋণ গ্রহিতা শিল্প প্রতিষ্ঠান পরিশোধ করবে এবং অবশিষ্ট ৫ শতাংশ সরকার ভর্তুকি হিসেবে সংশ্লিষ্ট ব্যাংককে দেবে।

 প্যাকেজ-৩: বাংলাদেশ ব্যাংক প্রবর্তিত এক্সপোর্ট ডেভলপমেন্ট ফান্ডের (ইডিএফ) সুবিধা বাড়ানো- ব্লক টু ব্লক এলসির আওতায় কাঁচামাল আমদানি সুবিধা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ইডিএফের বর্তমান আকার ৩ দশমিক ৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার হতে ৫ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত করা হবে। ফলে ১ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলারের সমপরিমাণ অতিরিক্ত ১২ হাজার ৭৫০ কোটি টাকা ইডিএফ তহবিলে যুক্ত হবে। ইডিএফ-এর বর্তমান সুদের হার LIBOR + ১.৫ শতাংশ (যা প্রকৃত পক্ষে ২.৭৩%) হতে কমিয়ে ২ শতাংশ নির্ধারণ করা হবে।

 প্যাকেজ-৪: প্রি-শিপমেন্ট ক্রেডিট রিফাইন্যান্স স্কিম (Pre-shipment Credit Refinance Scheme) নামে বাংলাদেশ ব্যাংক ৫ হাজার কোটি টাকার একটি নতুন ঋণ সুবিধা চালু করবে। এ ঋণ সুবিধার সুদের হার হবে ৭ শতাংশ।

প্যাকেজ-৫: ইতোপূর্বে রফতানিমুখী শিল্প প্রতিষ্ঠানসমূহের শ্রমিক-কর্মচারীদের বেতন/ভাতা পরিশোধ করার জন্য ৫ হাজার কোটি টাকার একটি আপৎকালীন প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী।