বুড়িগঙ্গা লঞ্চডুবির ঘটনায় মোট ৩৩ জন উদ্ধার

0
476

বুড়িগঙ্গা লঞ্চডুবির ঘটনায়  মোট  ৩৩ জন উদ্ধার

সোমবার ২৯ জুন সকাল সাড়ে ৯টার দিকে মুন্সিগঞ্জ কাঠপট্টি থেকে বুড়িগঙ্গা নদীর কেরানীগঞ্জের ফরাজগঞ্জ ঘাটে ৫০ জন যাত্রী নিয়ে ঢাকাগামী একটি লঞ্চ ডুবে গেছে । এ ঘটনা ঘটে বলে ফায়ার সার্ভিস সদরদপ্তর  বিষয়টি নিশ্চিত করেন।খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দলের দুই ইউনিট ঘটনাস্থলে গিয়ে উদ্ধার কাজ চালাচ্ছে।

কুমিল্লা ডক এরিয়ায় ময়ূর-২ লঞ্চ পেছনের দিকে ধাক্কা দিলে মর্নিং বার্ড লঞ্চটি ডুবে যায়। সোমবার রাত ৮টা পর্যন্ত পুরুষ, নারী ও শিশুসহ ৩২ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।এদের মধ্যে ২১ জন পুরুষ, আটজন নারী এবং তিনজন শিশু। মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে লঞ্চডুবির ঘটনায় নিখোঁজদের সন্ধানে ফের উদ্ধার কাজ শুরু করে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল। অভিযানের একপর্যায়ে দুপুর পৌনে ১টার দিকে আরও একজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এ নিয়ে মোট ৩৩ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

ঘটনাস্থলের কাছের একটি সিসিটিভি ফুটেজে দেখা যায়, ‘মর্নিং বার্ড’ নামে আকারে ছোট লঞ্চটিকে পেছন থেকে বড় সাদা একটি লঞ্চ ধাক্কা দিয়ে সামনে ঠেলে নিচ্ছে। কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে ছোট লঞ্চটি পুরোপুরি উল্টে বড় লঞ্চটির নিচে তলিয়ে যাচ্ছে। বড় লঞ্চটির নাম ময়ূর-২।

এদিকে, প্রায় ২৬ ঘণ্টা পর সকাল ১১টার দিকে এয়ারলিফটিং করে  পানির নিচ থেকে টেনে তোলা হয়েছে বুড়িগঙ্গায় ডুবে যাওয়া লঞ্চ ‘মর্নিং বার্ড’কে।লঞ্চটিকে তীরের কাছাকাছি আনা হয়েছে। নিখোঁজদের সন্ধানে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটি) ওই লঞ্চটির ভেতরে ফাইনাল সার্চ করা হবে।

লঞ্চডুবির ঘটনা তদন্তে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় সাত সদস্যের কমিটি গঠন করেছে বলে জানিয়েছেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী । কমিটি আগামী সাত দিনের মধ্যে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ে প্রতিবেদন দাখিল করবে। এছাড়া মৃত যাত্রীদের প্রত্যেকের পরিবারকে দেড় লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ ও তাৎক্ষণিকভাবে প্রত্যেকের দাফনের জন্য ১০ হাজার টাকা করে দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী ।