ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবসের কুচকাওয়াজে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর কন্টিনজেন্ট

0
480

ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবসের কুচকাওয়াজে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর কন্টিনজেন্ট

ভারতের ৭২তম প্রজাতন্ত্র দিবসের কুচকাওয়াজে (প্যারেড)  এবার বাংলাদেশের সশস্ত্র বাহিনীর ১২২ সদস্যের এক প্রতিনিধি দল অংশ নিচ্ছে। ভারতীয় হাইকমিশনের আমন্ত্রণে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর এই কন্টিনজেন্ট গত মঙ্গলবার ভারতীয় বিমান বাহিনীর আইএএফ সি-১৭ একটি বিশেষ বিমানে দেশটির রাজধানী দিল্লীতে ইতি মধ্যে পৌঁছেছেন। গতকাল ২৩ জানুয়ারি শনিবার তারা ভারতের রাজপথে মহড়ায় অংশ নেন। দলটি আগামী ২৬ জানুয়ারি নয়াদিল্লিতে ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবসের প্যারেডে অংশ নেবে।এই প্রতিনিধি দল আগামী ৩০ জানুয়ারি দেশে ফিরবেন।বুধবার ১৩ জানুয়ারি ঢাকার ভারতীয় হাইকমিশন এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানায়।

এতে উল্লেখ করা হয়, ভারতের ইতিহাসে তৃতীয়বারের মতো কোনো বিদেশি সামরিক বাহিনীর দলকে মধ্য দিল্লির রাজপথে জাতীয় কুচকাওয়াজে অংশ নিতে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। এটি বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ, কারণ ২০২১ সালে মুক্তিযুদ্ধের ৫০ বছর পূর্ণ হচ্ছে, যার মাধ্যমে বাংলাদেশ অত্যাচার ও নিপীড়নের কবল থেকে মুক্ত হয়ে একটি স্বাধীন জাতি হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছিল।

সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ‘মুজিববর্ষ’ এবং স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে ভারত তাদের প্রজাতন্ত্র দিবসের প্যারেডে অংশ নেওয়ার জন্য বাংলাদেশের সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের আমন্ত্রণ জানায়।

৫০ বছর আগে যে বাহিনী একসঙ্গে লড়াই করেছে, এখন তারা গর্বের সঙ্গে রাজপথে একসঙ্গে মার্চ করবে। বাংলাদেশ সেনাবাহিনী স্বাধীনতা, ন্যায়বিচার এবং তাদের জনগণের পক্ষে লড়াই করা সাহসী মুক্তিযোদ্ধাদের উত্তরাধিকারকে এগিয়ে নিয়ে যাবে। বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর দলটিতে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সৈনিক, বাংলাদেশ নৌবাহিনীর নাবিক এবং বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর বিমান সেনারা রয়েছেন।

উল্লেখ্য, ভারতের ইতিহাসে তৃতীয় দেশ হিসেবে বাংলাদেশ দেশটির প্রজাতন্ত্র দিবসের প্যারেডে অংশ নিচ্ছেন। এর আগে অংশ নিয়েছিল ফ্রান্স (২০১৬) ও সংযুক্ত আরব আমিরাত (২০১৭)। এ কুচকাওয়াজ আগামী ২৬ জানুয়ারি বিশ্বব্যাপী সরাসরি সম্প্রচারিত হবে।

বাংলাদেশ কন্টিনজেন্টের বেশিরভাগ সৈন্যই বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সর্বাধিক দক্ষ ইউনিট থেকে আগত, যার মধ্যে রয়েছে ১, ২, ৩, ৪, ৮, ৯, ১০ ও ১১ ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্ট এবং ১, ২ ও ৩ ফিল্ড আর্টিলারি রেজিমেন্ট, যারা একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ ও বিজয় অর্জনের অনন্য সম্মানে ভূষিত।