শিরিন আবু আকলেহ একজন ফিলিস্তিনি-মার্কিন সাংবাদিক নিপীড়িতফিলিস্তিনের কণ্ঠস্বর

0
82
শিরিন আবু আকলেহ একজন ফিলিস্তিনি-মার্কিন সাংবাদিক নিপীড়িতফিলিস্তিনের কণ্ঠস্বর

শিরিন আবু আকলেহ একজন ফিলিস্তিনি-মার্কিন সাংবাদিক ছিলেন । যিনি ২৫ বছর ধরে আল জাজিরার আরবি ভাষার চ্যানেলের প্রতিবেদক হিসাবে কাজ করেছিলেন ও তার কয়েক দশক ধরে প্রতিবেদন করার জন্য ইসরায়েল-অধিকৃত ফিলিস্তিনি অঞ্চল সহ মধ্যপ্রাচ্য জুড়ে তিনি একটি গর্বের জায়গায় ছিলেন।

শিরিন আরব বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় সাংবাদিকদের একজন, একজন প্রবীণ প্রতিবেদক, যাকে তার মৃত্যুর পর “আরব গণমাধ্যমের সবচেয়ে বিশিষ্ট ব্যক্তিদের মধ্যে” স্থান দেওয়া হয়েছে । তার কর্মজীবনের মধ্যে ছিল দ্বিতীয় ইন্তিফাদা সহ প্রধান ফিলিস্তিনি ঘটনাগুলোর প্রতিবেদন ও সেইসাথে ইসরায়েলি রাজনীতির বিশ্লেষক; টেলিভিশনে তার সরাসরি প্রতিবেদন ও স্বতন্ত্র সাইন-অফ-গুলো সুপরিচিত ছিল এবং তিনি অন্যান্য অনেক ফিলিস্তিনি এবং আরবদের সাংবাদিকতায় পেশা জীবন গড়তে অনুপ্রাণিত করেছিলেন।

২০২২ সালের ১১ মে পশ্চিম তীরের জেনিনে ইসরায়েল প্রতিরক্ষা বাহিনীর অভিযান পরিচালনা করার সময় তাকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছিল। আল জাজিরা ও ফিলিস্তিনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, তাকে আইডিএফ দ্বারা হত্যা করা হয়ে। এজেন্স ফ্রান্স প্রেসের একজন ফটোসাংবাদিকও রিপোর্ট করেছেন যে, ইসরায়েলি বাহিনী তাকে গুলি করে হত্যা করেছে। প্রত্যক্ষদর্শীদের প্রতিবেদনের পাশাপাশি অন্যান্য দেশ এবং বেসরকারি সংস্থার বিবৃতিতেও ইসরায়েলি বাহিনীর দ্বারা তার হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হয়েছে বলে চিহ্নিত করা হয়েছে। যদিও ইসরায়েল প্রাথমিকভাবে বলেছিল যে তিনি ফিলিস্তিনি জঙ্গিদের সাথে গুলি বিনিময়ের ফলে নিহত হয়েছেন, একজন ইসরায়েলি মুখপাত্র পরবর্তীতে বলেছিলেন যে কে দায়ী তা এখনও জানা যায়নি; ইসরায়েলির দাবি যে ফিলিস্তিনিরা আইডিএফ-এর উপর গুলি চালিয়েছিল তা প্রত্যক্ষদর্শী এবং ফিলিস্তিনি ব্যক্তিদের দ্বারা বিতর্কিত ছিল।

ইসরায়েলি বাহিনী আবু আকলেহের মরদেহ শান্তিতে বহন করতে দেয়নি এবং মর্মান্তিকভাবে শোক পালনকারীদের উপর আক্রমণ করেছিল । সাংবাদিক শিরীনের কফিন বহনকারী ফিলিস্তিনিদের স্লোগান দিতে দেখা যায়। প্রচণ্ড ভিড়ের মধ্যে লাঠিচার্জ করে ইসরায়েলি পুলিশ। এসময় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে সেখানে তারা প্রায় কফিনটি ফেলে দেয়। ইসরায়েলি পুলিশ সদস্যদের লাঠিচার্জের জবাবে ইট-পাটকেল ছুড়তে দেখা যায় ক্ষুব্ধ ফিলিস্তিনিদের। এই ভয়ঙ্কর আক্রমণটি দেখার পরও পশ্চিমাদের থেকে কোন নিন্দা ছিল না।

বিশ্বের অন্য কোথাও যদি এটি অন্য কোনও সাংবাদিকের সাথে ঘটে থাকতো তবে পশ্চিমাদের থেকে সংহতি প্রকাশ হত। সংবাদপত্রের স্বাধীনতার মূল্যবান ইস্যুটি মূলধারার নিউজ চ্যানেলগুলিতে আলোচ্যসূচির শীর্ষে থাকতো । অথচ এক্ষেত্রে পশ্চিমারা লজ্জাজনক ভাবে নীরব । প্রকৃতপক্ষে, আবু আকলেহকে হত্যার বিষয়ে তাদের প্রতিক্রিয়া দৃঢ়ভাবে ইঙ্গিত করে যে তারা যদি কোন উপায়ে ইসরায়েলকে জড়িত করে তবে একটি বৈধ তদন্ত হতে পারে যা করার তাদের কোন ইচ্ছা নেই।

এটি শুধুমাত্র সংবাদপত্রের স্বাধীনতা এবং শিরিনের মৃত্যুর জন্য জবাবদিহিতা পাওয়ার বিষয়ে নয়; এটি ফিলিস্তিনিদের এমনকি মৌলিক মানবাধিকারের অভাব সহ দখলদারিত্বের অধীনে জীবনযাপনের মুখোমুখি হওয়া সংগ্রামগুলিকেও তুলে ধরে। শিরীন আবু আকলেহ তাদের একটি কণ্ঠস্বর এবং একটি নিপীড়নমূলক শাসনের অধীনে বসবাসের বাস্তবতা তুলে ধরার সুযোগ দিয়েছিলেন।
তিনি একজন সাংবাদিক ছিলেন যিনি তার পেছনে দীর্ঘস্থায়ী উত্তরাধিকার রেখে গেছেন; তিনি একজন সাংবাদিক হিসাবে তার দায়িত্বের প্রতি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ ছিলেন এবং এমন একজন থাকবেন যার কাছে তার পেশার সহকর্মীরা, সর্বদা তাকাবে এবং অনুপ্রাণিত হবে।

ফিলিস্তিনিদের বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘন এবং অপরাধের জন্য জবাবদিহি করার জন্য খুব কমই করা হচ্ছে তা সত্ত্বেও, সারা বিশ্বের সাংবাদিকদের চুপ থাকা উচিত নয়। যারা সংবাদপত্রের স্বাধীনতাকে হুমকির মুখে ফেলে তাদের বিরুদ্ধে দৃঢ় অবস্থান নিতে হবে। শিরিন আবু আকলেহ এবং সেই সমস্ত লোকদের জন্য যাদের কাছে তিনি ইতিবাচক পরিবর্তনের আশায় এবং তাদের মাতৃভূমিতে ইসরায়েলের দখলদারিত্বের অবসানের জন্য আওয়াজ দিয়েছিলেন। নিপীড়িত ফিলিস্তিনি স্বর সাময়ীক স্তব্ধ হয়ে গেলেও কি দখলদারিত্বের অবসানের জন্য আওয়াজ বন্ধ হবে ?

শিরিন আবু আকলেহ ১৯৭১ সালে জেরুসালেমে জন্মগ্রহণ করেন; বয়স ছিল মাত্র ৫১ বছর।তার পরিবারের সদস্যরা ছিলেন বেথলেহেমের আরব ফিলিস্তিনি খ্রিস্টান। তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সময় কাটিয়েছেন, নিউ জার্সিতে বসবাসকারী তার মায়ের পরিবারের সদস্যদের মাধ্যমে মার্কিন নাগরিকত্ব পেয়েছিলেন।