‘সবুজ অর্থনীতি’ পৃথিবীকে বাঁচাতে কোন শহরের কী পরিকল্পনা?

0
18

‘সবুজ অর্থনীতি’ পৃথিবীকে বাঁচাতে কোন শহরের কী পরিকল্পনা?

পৃথিবীকে বাসযোগ্য করে তোলার একমাত্র চাবিকাঠি সবুজ অর্থনীতি৷ নিজেদের গ্রহকে নিজেদের রক্ষা করতে হবে ৷ ২০১৫ সালে প্যারিস জলবায়ু চুক্তি বিশ্ব উষ্ণায়নের কথা মাথায় রেখে চুক্তি সই হয়েছিল৷ ওই চুক্তিতে স্থির হয়, অদূর ভবিষ্যতে বিশ্বের তাপমাত্রা দুই ডিগ্রি সেলসিয়াসের বেশি যাতে বাড়তে না পারে, তার দিকে নজর রাখা হবে৷
পৃথিবীর গড় তাপমাত্রা তিন ডিগ্রি সেলসিয়াস বেড়েছে, যা বাসযোগ্য গ্রহের গড় তাপমাত্রার দ্বিগুণ৷ একাধিক দেশের সরকার জীবাশ্ম জ্বালানি শিল্পকে ‘ক্লিন এনার্জি’-র তিন গুণ হারে ভরতুকি দিয়ে যাচ্ছে৷ জীবাশ্ম জ্বালানি লবির দীর্ঘকালীন প্রভাব থেকে শুরু করে ইউক্রেনের আক্রমণের ফলে জ্বালানি সংকটের মাঝেও স্থানীয় স্তরে অনেকে কাজের চেষ্টা চলছে ৷
গত বছর জলবায়ু সম্মেলনের সময় লন্ডনের মেয়র সাদিক খান বলেন, ‘‘শহর এবং সরকারের মধ্যে পার্থক্য রাত এবং দিনের মতো৷’’ তবুও ইউরোপ এবং এশিয়ার শহরেও জলবায়ু পরিবর্তনের কথা মাথায় রেখে পৃথিবীকে বাসযোগ্য করে তোলার চেষ্টা চলছে৷
কোপেনহেগেন বিশ্বের প্রথম জলবায়ু নিরপেক্ষ শহর হিসেবে তোলার চেষ্টা চলছে। কোপেনহেগেন সরকার চায় ২০২৫ সালের মধ্যে শহরের অন্তত ৭৫ শতাংশ যাতায়াত হোক পায়ে হেঁটে, সাইকেলে কিংবা গণপরিবহণের মাধ্যমে৷ ২০৩০ সালের মধ্যে শহরে অভ্যন্তরীণ জ্বালানি ইঞ্জিনের যানবাহন নিষিদ্ধ করা হবে৷
কার্বন-ডাই-অক্সাইডের অন্যতম উৎস বিদ্যুৎ এবং তাপ৷ কোপেনহেগেন প্রশাসন কয়লা, তেল এবং গ্যাসকে পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তি দিয়ে প্রতিস্থাপন করছে৷ আবাসনগুলিতে তৈরি হওয়া, উৎপাদনের ফলে তৈরি হওয়া ব্যাপক বর্জ্য কমাতে ‘স্মার্ট এনার্জি গ্রিড’ স্থাপন করেছে তারা ডেনমার্ক৷
ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ২০৭০ সালের মধ্যে কার্বন নিরপেক্ষতার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন৷ বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম কার্বন-ডাই-অক্সাইড নির্গমনকারী দেশ হিসেবে, সেই পদক্ষেপ তাৎপর্যপূর্ণ৷ মুম্বইয়ের মতো বিশাল জনসংখ্যার (দুই কোটি) শহরও এই পদক্ষেপে শামিল হয়েছে৷ বৃষ্টি হলেই জল থৈ থৈ মুম্বই, তেমনই গরমের সময়ও ত্রাহি ত্রাহি অবস্থা৷২০৫০ সালের মধ্যে ৫০ শতাংশ পুনর্নবীকরণযোগ্য লক্ষ্যে পৌঁছানোর জন্য সৌরশক্তির ব্যবহার বাড়াবে মুম্বই৷ ২০২৩ সালের মধ্যে দুই হাজারের বেশি বৈদ্যুতিক বাস চলবে মুম্বইয়ে৷ শহরের ১০ শতাংশ কার্বন নির্গমনের জন্য দায়ী বর্জ্য–বিশেষ করে বর্জ্য থেকে উৎপাদিত মিথেন৷ এর ফলে শহর জুড়ে বনায়ন শুরু হয়েছে মুম্বইয়ে৷
পায়ে হাঁটা এবং সাইকেল চালানোর উপযোগী শহর তৈরি করে কার্বন নির্গমন উল্লেখযোগ্যভাবে কমানো সম্ভব৷ বেঁচে থাকার জন্য যা কিছু প্রয়োজন, তা যদি ১৫ মিনিটেই পাওয়া যায়? তাহলে তো গাড়ির প্রয়োজন হবে না৷ কার্বন নির্গমন কমবে৷ প্যারিসের মেয়র অ্যানে হিদালগো চান, ২০২৪ সালের মধ্যে শহরের প্রতিটি রাস্তায় সাইকেল লেন থাকুক৷ ফলে ২০৫০ সালের মধ্যে কার্বন-নিরপেক্ষতার লক্ষ্যপূরণ করা যাবে৷ এটাই হলো ১৫ মিনিটের প্যারিস শহরের পরিকল্পনা৷
শহর এবং আঞ্চলিক কর্তৃপক্ষ প্রায়ই জলবায়ু ইস্যুর বিষয়ে জাতীয় সরকারকে তুলোধোনা করে৷ স্ব-উন্নত শহুরে সমবায় আবাসনের ক্ষেত্রে ছোট ছোট আকারে বদল আনা সম্ভব৷ জার্মানির বিল্ডিং গ্রুপের ভাবনার উপর ভিত্তি করে সিয়াটলের লার্চ ল্যাব আর্কিটেকচার ফার্ম এই নিয়ে কাজ করছে৷ ‘লো এনার্জি’ আবাসন এবং ‘ইকোডিস্ট্রিক্ট’ তাদের লক্ষ্য৷
জার্মানির ফওবান জেলার সবুজ শহর ফ্রাইবুর্গে ‘মডেল ইকো নেবারহুড’ তৈরি হয়েছে৷ এটি ‘জিরো এমিশন’ শহর৷ ২০৩০ সালের মধ্যে ৬০ শতাংশ নির্গমন কমাতে বদ্ধপরিকর স্থানীয় মানুষ এবং পৌরপ্রশাসন৷ এ শহরের পাঁচ হাজার ৬০০ জন বাসিন্দাদের কেউ গাড়ি ব্যবহার করেন না৷ রাস্তাগুলি সাইকেল এবং পথচারী-বান্ধব৷ ছাদে সৌরশক্তিসহ উজ্জ্বল রঙের ‘পাসিভহউস’ ভবন রয়েছে৷ বায়োগ্যাসচালিত শক্তি কারখানা বিদ্যুতের চাহিদা পূরণ করে৷
বাংলাদেশের প্রথম পরিকল্পিত জলবায়ুর শহর নারায়ণগঞ্জ।কার্বন নির্গমন কমাতে এবং জলবায়ুর কথা বিবেচনায় রেখে উন্নয়ন কর্মকাণ্ড চালাতে গত এপ্রিলে একটি অ্যাকশন প্ল্যান গ্রহণ করেছে নায়ায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন৷ দ্বিতীয় শহর হিসেবে রাজশাহীও এমন একটি প্ল্যানের অনুমোদন দিয়েছে৷
সিটি কর্পোরেশন ইতিমধ্যে বায়ুর মান পর্যবেক্ষণ ব্যবস্থা স্থাপন করেছে৷ এর মাধ্যমে প্রকাশ্যে স্থাপিত স্ক্রিনের মাধ্যমে মানুষকে বাতাসে কার্বন মনোক্সাইড, নাইট্রেোজেন ডাইঅক্সাইড ও সালফার ডাইঅক্সাইডের মতো দূষণকারী গ্যাসের পরিমাণ জানানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে৷সিটি কর্পোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী জানান, তারা শহরের বিভিন্ন স্থানে ইকো-পার্ক তৈরি এবং শীতলক্ষ্যা নদী ও খালের চারদিকে বনায়নের কাজ শুরু করেছেন৷